Discussion Detail Print this Page
 
 

 

Title of the Topic : টি-টোয়েন্টি’র জন্য চাঁদা ও কর্পোরেট জগতের সরকার
Author : Sajjad Zohir Download full Document  :
Date of Posting : 2014-03-19   Publisher's URL : www.bonikbarta.com Click to view
             
 
আকস্মিকভাবে মাঝরাতের টক-শো থেমে যাওয়ার কি কারন থাকতে পারে তা জানিনা, বিরতিকালে উপস্থিত অন্যদের সাথে কথোকোপনে বুঝতে পারি যে কর, চাঁদা ও বৈধতা প্রশ্নে আমার অবস্থান অনেককে বিস্মিত করেছে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট আয়োজনের আংশিক খরচ মেটাতে কথিত ‘চাঁদা’ সংগ্রহের উদ্যোগের বৈধতা নিয়ে ট্রান্সপারেন্সী ইন্টারন্যাশনাল (বাংলাদেশ)-এর বক্তব্যের প্রেক্ষাপটে নানাজনের নানা মত রয়েছে
 
   

আকস্মিকভাবে মাঝরাতের টক-শো থেমে যাওয়ার কি কারন থাকতেপারে তা জানিনা, বিরতিকালে উপস্থিত অন্যদের সাথেকথোকোপনে বুঝতে পারি যে কর, চাঁদা ও বৈধতা প্রশ্নে আমার অবস্থান অনেককে বিস্মিতকরেছে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট আয়োজনের আংশিক খরচ মেটাতে কথিত ‘চাঁদা’ সংগ্রহের উদ্যোগের বৈধতা নিয়ে ট্রান্সপারেন্সী ইন্টারন্যাশনাল (বাংলাদেশ)-এর বক্তব্যের প্রেক্ষাপটে নানাজনের নানা মত রয়েছে। অনেকে টিআইবি-এর সাথে একমত হয়ে বৈধতাকে প্রাধান্য দিবেন, অনেকে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা’র কথা তুলবেন। আমি মনে করি যে এদেশের সামগ্রিক প্রেক্ষাপটে বৈধতার আলোচনা অহেতুক কালক্ষেপন ঘটাবে - বরং, মন্ত্রী’র উদ্যোগেঅর্থ-উত্তোলনের তাৎপর্য অনুসন্ধান ও ‘বিশ্বায়নে’র যুগে রাষ্ট্র ও সরকারের পরিবর্তনশীল চরিত্র অনুধাবন অধিক জরুরী। কিছুটা একপেশে (দলছুট) হয়ে তাইএ-নিবন্ধে সে বিষয়ে আলোচনা উত্থাপনে সচেষ্ট হবো

চাঁদাতোলা কি বৈধ? জনৈকমন্ত্রীর উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদ-মাধ্যমে উল্লেখ করা হয়েছে যে গতবছরে ৬০ কোটি টাকা চাঁদা-সংগ্রহ করা হয়েছিল। যদি কাগজে-কলমে তা করা না হয়ে থাকে,ঘটনাটির অস্তিত্ব কেবল একজন ব্যাক্তির স্বীকারোক্তিতে!যখন একই ব্যাক্তি’র বক্তব্যের স্থিতি নিয়ে প্রকাশ্যে কটাক্ষ করা হয়, আদালত চত্বরেএই বৈধ-অবৈধের বিতর্ক কিভাবে নিহিত হবে তা বাড়তি কালক্ষেপণের খোরাক জোগাতে পারে!যদি সরকারী কোষাগারে জমা না পড়ে এই অর্থ সংগৃহিত ও ব্যয় করা হয়, এবং একই ব্যাক্তি’রবক্তব্য নতুন মোড়কে উস্থাপিত হয়, বৈধতা’র আলোচনাটাই অপ্রাসঙ্গিক হয়ে পড়বে। কারণ, এ বিতর্কথেকে নতুন জ্ঞান-প্রাপ্তির যেমন সম্ভাবনা নেই - তেমনি, সমগ্র ঘটনা’র অনাকাংখিত দিকগুলো আগামীতে বর্জন নিশ্চিত করা সম্ভব নয়।

যে কোনও আর্থিক লেনদেনে স্বচ্ছতা থাকা আবশ্যিক, এবং তাযদি জনস্বার্থ-সংশ্লিষ্ট হয়, তার জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা অধিকতর জরুরী। সঙ্গতকারণেই প্রশ্ন জাগে, গত বছরে এজাতীয় ‘চাঁদা সংগ্রহ কার মাধ্যমে করা হয়েছিল? এবং তা কিভাবে ব্যবহারকরা হয়েছিল? যারা চাঁদা দিয়েছিলেন, তাদের হিসেবের খাতায় (যা বাৎসরিক অডিটের আওতায় থাকার কথা) এই দানকে কিভাব দেখানো হয়েছিল? এবং যিনি বা যেসকল প্রতিষ্ঠান সমুদয়অর্থ পেয়ে নির্দিষ্ট খাতে (বা অন্য কোনও কাজে) ব্যয়করেছেন, তার হিসেব কোথায়? বৈধতার চাইতেও স্বচ্ছতা’র দাবীটা সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্যঅধিক জরুরী - অন্যথায়, বৈধতা’র আইনী মারপ্যাচে হাজারো বুদবুদের মত এবিষয়ও তলিয়েযাবে। নিবন্ধটি লেখার সময় টিভি পর্দায় প্রধানমন্ত্রী’র কাছে চেক-প্রদান পর্বটিদেখেছি। যতদূর জেনেছি, যেটাকে অনুদান মনে করা হচ্ছে, তা কার্যতঃ আগাম কর – অর্থা, আগামীতে দেয় আয় বা মুনাফা করের সাথে সামঞ্জস্যকরা হবে।

   

Other Areas of Interest
-Society & Politics
-Economics & Development
-Governance
-Education
-Photography & Art
 
© 2014 Discussion Board